সাম্প্রতিক পরিবর্তন অজানা যেকোনো পাতা
Computers
Gaming
History 
Movies
Politics
Television
see all...
আরও...

ইয়াসুজিরো ওজু

চলচ্চিত্র থেকে

(Yasujiro Ozu থেকে পুনর্নির্দেশিত)
Yasujiro Ozu
Yasujiro Ozu.jpg
জন্ম:
১২ ডিসেম্বর, ১৯০৩
Tokyo, Japan
মৃত্যু:
১২ ডিসেম্বর, ১৯৬৩
Tokyo, Japan
মাতৃভূমি জাপান
কর্মস্থল জাপান
কার্যকাল ১৯২৭১৯৬২
সেরাকীর্তি Tokyo Monogatari
ইন্টারনেটে

IMDb
Rotten Tomatoes
Wikipedia

প্রাচ্যের অতীন্দ্রিয় শৈলী’র (transcendental style) আদর্শ উদাহরণ হচ্ছে ইয়াসুজিরো ওজু’র চলচ্চিত্র। তার সিনেমায় শৈলীটা খুব প্রাকৃতিক, দেশজ এবং একইসাথে বাণিজ্যিকভাবে সফল যা সম্ভবত কেবল জাপানী সংস্কৃতির বিশেষ বৈশিষ্ট্যের কারণেই সম্ভব হয়েছে। প্রাচ্যের, বিশেষ করে জাপানের, সংস্কৃতির সাথে অতীন্দ্রিয় ভূয়োদর্শন এত ওতোপ্রোতভাবে জড়িয়ে আছে যে, ওজু জাপানী শিল্পের জনপ্রিয় রীতির ভেতরে থেকেই তার অতীন্দ্রিয় শৈলী তৈরি করতে পেরেছেন। এমনকি তাকে “সবচেয়ে জাপানী চলচ্চিত্র পরিচালক” বলা হয়-- জাপানে তার সিনেমার বাজার বেশ ভাল ছিল এবং এক পর্যায়ে জঁরা-চলচ্চিত্রকার হিসেবেও পরিচিতি পেয়ে গিয়েছিলেন, পশ্চিমের কোন অতীন্দ্রিয় চলচ্চিত্রশিল্পী যা কোনদিন স্বপ্নেও ভাবতে পারবেন না।

প্রাচ্যের আর্ট, বিশেষ করে জেন (Zen) আর্ট, সব সময় ইন্দ্রিয়কে অতিক্রম করতে চায়। প্রাগৈতিহাসিক শিল্পের মতই ঐতিহ্যগত প্রাচ্য-শিল্প ‘পবিত্র’ (sacred) ও ‘সাংসারিক’ (secular) এর মাঝে কোন পার্থক্য করে না। প্রাচ্য যে দীর্ঘস্থায়ী সংস্কৃতি নির্মাণ করেছে স্কলাস্টিক ও নব্য-প্লেটোবাদীরা তা অনুসরণ করেই তাদের অনুকল্প প্রস্তাব করেছিল, বা ক্ষেত্রবিশেষে হয়ত তদনুরূপ একটা নামহীন আর্ট প্রণয়নও করেছিল যাতে সকল সত্য কেবল “পরমাত্মা” (Spirit) থেকেই উৎসারিত হয়। জেন জগতে মনের কাব্যিক ও ধর্মীয় দশা সমার্থক, ধার্মিকের কাছে সবকিছুই কাব্যিক, আর কাব্যপ্রেমীর কাছে সবকিছুই ধর্মীয়। ১৩০০ বছর ধরে জেন তার অতীন্দ্রিয় সত্ত্বাকে পরম যত্নে লালন করেছে, তাই তা ধর্ম ও শিল্প ছাপিয়ে প্রাত্যহিক কর্মকাণ্ডেরও অংশ হয়ে উঠেছে। অতীন্দ্রিয়ের প্রকাশে কেবল বুদ্ধিবৃত্তিক বা ধর্মীয় অভিজাত শ্রেণীরই অধিকার ছিল না। শিল্পের হাত ধরে তা প্রাচ্যের ঐতিহ্যের সাথে অঙ্গাঅঙ্গিভাবে জড়িয়ে গেছে, সেখানে চারু আর কারুকলার মাঝে কোন পার্থক্য নেই। অতীন্দ্রিয়’র মত একটা শব্দ যে বিমূর্ত ভাবের জন্ম দেয় জেন মতে আসলে সেটাও গ্রহণযোগ্য নয়, শব্দের কাছে নিজেকে সমর্পণ করতে সে কখনই রাজি নয়। তাই জেন মানেই অতীন্দ্রিয়ের সাধনা না বলে কেবল বলা উচিত, জেন অতীন্দ্রিয়ের জগতে বিচরণ করে।

অতীন্দ্রিয়কে প্রকাশের উপায় উদ্ভাবন বা স্বদেশে অতীন্দ্রিয়ের ভাব অবতারণা কোনটাই ওজুকে করতে হয় নি; তিনি কেবল ইতিমধ্যে বিরাজমান ভাবধারাটিকে চলচ্চিত্রে ফুটিয়ে তুলেছেন। চলচ্চিত্রের মত একটা আধুনিক নৈরাজ্যবাদী শিল্পমাধ্যমকে তিনি প্রাচ্যের ঐতিহ্যের ভার বহনে সক্ষম করে তুলেছেন। ডোনাল্ড রিচি জাপানী চলচ্চিত্রকারদেরকে একটি ডায়াগ্রামে বসিয়েছিলেন-- কুরোসাওয়া সবার বামে (আধুনিক), আর ওজু সবার ডানে (প্রথানুরাগী)। বিষয়বস্তু ও নির্মাণশৈলীর ব্যাপারে ওজু বেশ রক্ষণশীল, প্রাচীন ঐতিহ্যকে নতুন ফরম্যাটে তুলে আনতে অনেক সংগ্রাম করেছেন। জাপানে আধুনিক সভ্যতার বিকাশ ঘটেছে মাত্র গত ১০০ বছরে, তাই আধুনিকতা দুই সহস্র বছর পুরনো জাপানী সভ্যতার কেবল বাহ্যাবরণ। ওজুর সিনেমায় জেন শিল্প ও চিন্তাধারা সেই সভ্যতা, আর সিনেমাটা নিজে কেবল তার বাহ্যাবরণ।

নিজ সংস্কৃতি থেকে এত সুবিধা পেলেও ওজু’র কাজ যতটা মনে হচ্ছে তত সোজা ছিল না। জাপানে যখন পশ্চিমের প্রভাব দ্রুত বেড়ে চলছিল, ওজু তখন ঐতিহ্যগত মূল্যবোধ খুঁজে বেড়াচ্ছিলেন। জাপানের অনেক তরুণ তাকে এমনকি বেশ প্রতিক্রিয়াশীলও মনে করত। কিন্তু ওজু ফ্যাশন ভুলে সিনেমার অতীন্দ্রিয় শৈলীর সন্ধানকেই জীবনের উদ্দেশ্য করেছিলেন। তারপরও পশ্চিমের অনেক চলচ্চিত্রকারের তুলনায় তাকে কম বাধার সম্মুখীন হতে হয়েছে। ফ্রান্সে রোবের ব্রেসোঁ-কে তো নৈসর্গ্যিক পূর্বসূরীর সন্ধানে সেই স্কলাস্টিকদের যুগে ফিরে যেতে হয়েছিল, যা করতে গিয়ে তিনি বাণিজ্যিক সাফল্য, জনপ্রিয়তা সবই হারিয়েছেন।

ওজু’র কর্মজীবন উত্তরোত্তর পরিশোধন পরিমার্জনের প্রকৃষ্ট উদাহরণ, নিজের কৌশল, বিষয়বস্তু, সম্পাদনা তিনি দিনদিন সমৃদ্ধ করেছেন। ১৯২৭ থেকে ১৯৬২ সাল পর্যন্ত ৩৫ বছরের কর্মজীবনে তিনি মোট ৫৪ টি সিনেমা বানিয়েছেন। ক্যারিয়ারের প্রথম দিকে প্রযোজকদের চাহিদামত রোমান্টিক ও সামাজিক সিনেমা বানাতেন, কিন্তু পরের দিকে, বিশেষ করে দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের পর, শুধুমাত্র শোমিন জঁরায় নিজেকে আবদ্ধ রাখেন। এমনকি শোমিন-গেকি’র মধ্যেও নির্দিষ্ট কিছু বিরোধ ও সমাধানেই তিনি আগ্রহী ছিলেন।

শোমিন জঁরার বিষয়বস্তু শ্রমিক, দিনমজুর ও মধ্যবিত্ত শ্রেণী, তাদের পরিবারের মধ্যকার কৌতুকময়, করুণ বা মধুর সম্পর্ক। ১৯২০’র দশকে যখন জাপানের মধ্যবিত্ত শ্রেণী নিজেদের দেখে হাসার যোগ্যতা অর্জন করে তখনই শোমিন-গেকি’র জন্ম। শুরুতে এগুলো ছিল কেবল মেলোড্রামা ও হালকা কৌতুকের সিনেমা। অনেক সমালোচক ওজু’র নিজের বিবর্তন বোঝাতে তার ১৯৩২ সালের সিনেমা “আই ওয়াজ বর্ন, বাট...” এবং ১৯৫৯ সালের পুনর্নির্মাণ “ওহায়ো” তুলনা করেন। প্রথমটিতে তার লক্ষ্যবস্তু ছিল সামাজিক ও সুনির্দিষ্ট, কিন্তু দ্বিতীয়টিতে ব্যঙ্গাত্মক ও সর্বজনীন। প্রথমটিতে চিন্তাশীলতার চেয়ে কর্মমুখরতা বেশি। তখন সময়, প্রাচুর্য, যুদ্ধ, সরকারী চাপ, পাশ্চাত্যায়ন ইত্যাদি সাধারণভাবে শোমিন-গেকি এবং বিশেষভাবে ওজুকে মিতাচারী হতে বাধ্য করেছে। কিন্তু যুদ্ধের পর তার সিনেমায় হালকা কৌতুকের স্থান করে নিয়েছে হতাশ্বাস বিষন্নতা। কিন্তু শোমিন-গেকি তিনি ছেড়ে দেন নি, এবং যুক্তরাষ্ট্রে জন ফোর্ড যেমন ওয়েস্টার্ন সিনেমাকে নতুন গড়ন দিয়েছিলেন জাপানে তিনিও তেমনি শোমিন-গেকিকে নতুন মাত্রা দিয়েছেন। ওজু’র শেষকালের সিনেমা তাই সাধারণ শোমিন-গেকি’র প্রতিনিধিত্ব করে না, কিন্তু বলা যায় শোমিন-গেকি এই সিনেমাগুলোর মতই হওয়া উচিত।

রিচি লিখেছিলেন, “ওজু’র সিনেমায় একটি পরিবারের মধ্যেই গোটা বিশ্ব অস্তিত্বশীল। সেখানে ঘরের ঠিক বাইরেই পৃথিবীর সমাপ্তি।” ওজু মূলত মধ্যবিত্ত চাকুরিজীবীদের নিয়ে কাজ করেছেন, “সোশুন” (১৯৫৬) সিনেমায় ঘরোয়া পরিবারের বদলে অফিসই মুখ্য হয়ে উঠে। তিনি ঘর ও অফিস এবং বাবা-মা ও সন্তানের মাঝে টানাপোড়েন ফুটিয়ে তুলেছেন, যা আসলে পুরনো ও নতুন জাপান এবং ঐতিহ্য ও পাশ্চাত্যায়নের মধ্যকার টানাপোড়েন এবং সবার উপরে মানুষ ও প্রকৃতির মধ্যে টানাপোড়েনেরই আরেক রূপ।

১৯৬৩ সালে ষাট বছর বয়সে ওজু মারা গিয়েছিলেন। শেষ দিকে তিনি শোমিন-গেকি’র মধ্যেও বিশেষ কিছু দ্বন্দ্ব নিয়ে কাজ করেছেন। এই দ্বন্দ্ব নাট্য তো নয়ই এমনকি সেখানে কোন কাহিনীরও অস্তিত্ব নেই। তিনি রিচিকে বলেছিলেন, “প্রকট কাহিনীসমৃদ্ধ ছবি দেখতে এখন আমার বিরক্তিকর লাগে। অবশ্যই সিনেমার একটা কাঠামো থাকতে হবে, নয়ত তাকে সিনেমাই বলা যাবে না, কিন্তু আমার মনে হয় অতিরিক্ত নাটক বা ক্রিয়া থাকলে তাকে ভাল সিনেমা বলা যায় না।” “আকিবিয়োরি” (১৯৬০) প্রসঙ্গে বলেছিলেন, “আমি সকল নাটকীয় যন্ত্র অপসারণের মাধ্যমে একজন মানুষের চরিত্র ফুটিয়ে তুলতে চাই। মানুষকে নাটকীয় উত্থান পতনগুলো নাকে আঙুল দিয়ে দেখিয়ে না দিয়ে জীবনটা আসলে কেমন তা অনুভব করাতে চাই।” ওজু ভাবতেন জাপানী সমাজে বেশ কিছু পরস্পরবিরোধী শক্তি আছে যেগুলোর সাথে সন্ধি করা দরকার। এই সন্ধি তার মতে অবশ্যই কাহিনী বা গল্পের মত এত কৃত্রিম একটা বিষয় দিয়ে সম্ভব নয়।

১৯৪৯ থেকে ১৯৬২ সালের মধ্যে তার নির্মীত ১৩টি সিনেমার বিষয়বস্তু ছিল মূলত পরিবার-অফিস। এগুলোতে বাবা-মা’র সাথে সন্তানের বিচ্ছেদ প্রকটভাবে ফুটে উঠেছে। বিচ্ছেদের কারণগুলোও খুব সাধারণ: বিয়ে, শহর বদল, ঝগড়া-বিবাদ, বা খুব বেশি হলে বাড়ি থেকে পালিয়ে যাওয়া। এই ছোট ঘটনাগুলোর আড়ালে প্রোথিত থাকে আধুনিক জাপানের বিভেদ সৃষ্টিকারী বড় বড় ঘটনা: দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধ (সে সময়কার শিশুদের আপ্রি-গের প্রজন্ম বলা হয়), পাশ্চাত্যায়ন। কিশোর অপরাধী বিষয়ক মার্কিন সিনেমার মত এখানে বিচ্ছেদের কারণ যোগাযোগে অপারগতা নয়। ওজু’র খুব ভাল সম্পর্কে আবদ্ধ চরিত্ররাও পরস্পরের সাথে খুব একটা যোগাযোগ করে না, অন্তত সমাজতত্ত্বে অনুকম্পা ও আবেগমিশ্রিত যে যোগাযোগ নিয়ে কথা প্যাঁচানো হয় ওজু’র সিনেমায় তার অস্তিত্ব নেই। এখানে বিচ্ছেদের কারণ প্রথাগত পারিবারিক ইউনিটের বিলুপ্তি যে পরিবারের ভেতরে ভাষাগত যোগাযোগ আগেও খুব বেশি ছিল না।

ফিল্মোগ্রাফি

ইয়াসুজিরো ওজু মোট কয়টি সিনেমা নির্মাণ করেছেন তা বুঝানোর জন্য প্রথম কলামে নম্বর উল্লেখ করা হয়েছে; নম্বরে ক্লিক করলে উক্ত সিনেমার আইএমডিবি পাতায় যাওয়া যাবে। প্রথম সারির সর্ট চিহ্নগুলোতে ক্লিক করে তালিকাটি বিভিন্ন বিষয় অনুযায়ী সর্ট করা যাবে।

: দৈর্ঘ্য (মিনিট), : আইএমডিবি রেটিং, : আইএমডিবি ভোটসংখ্যা, : রটেন টম্যাটোস রেটিং (৩-১-২০১৪)
# সিনেমার নাম মুক্তি ঘরানা
An Autumn Afternoon ১৯৬২ নাট্য ১১২ ৮.১ ২,৯৮৫ ৯২
The End of Summer ১৯৬১ নাট্য ৭.৯ ১,৫৯৭
Late Autumn ১৯৬০ নাট্য ১২৮ ৮.০ ১,৬৬৪ ১০০
Floating Weeds ১৯৫৯ নাট্য ১১৯ ৭.৯ ৩,৭৩২
Good Morning ১৯৫৯ কমেডি, নাট্য ৯৪ ৭.৯ ৩,৩৩৪ ৮৮
Equinox Flower ১৯৫৮ কমেডি, নাট্য ১১৮ ৭.৯ ১,৪৪৩ ৮৬
Tokyo Twilight ১৯৫৭ নাট্য ১৪০ ৮.১ ১,৩৮৪ ১০০
Early Spring ১৯৫৬ নাট্য ১৪৪ ৭.৯ ১,২০৮ ১০০
Tokyo Story ১৯৫৩ নাট্য ১৩৬ ৮.৩ ১৭,৯১৭ ১০০
১০ Flavor of Green Tea Over Rice ১৯৫২ নাট্য ৭.৯ ৯৬৪
১১ Early Summer ১৯৫১ নাট্য ১২৪ ৮.০ ৩,১৮৩ ১০০
১২ The Munekata Sisters ১৯৫০ নাট্য ৭.৪ ৩১৬
১৩ Late Spring ১৯৪৯ নাট্য ১০৮ ৮.১ ৬,২৬৪ ১০০
১৪ A Hen in the Wind ১৯৪৮ নাট্য ৭.৬ ৪৭৮
১৫ Record of a Tenement Gentleman ১৯৪৭ নাট্য ৭.৯ ৮২০ ১০০
১৬ There Was a Father ১৯৪২ নাট্য ৭.৭ ৯৮৮ ১০০
১৭ The Brothers and Sisters of the Toda Family ১৯৪১ নাট্য ১০৫ ৭.৪ ৪২৪
১৮ What Did the Lady Forget? ১৯৩৭ কমেডি, নাট্য ৭১ ৭.৩ ৩০৯
১৯ The Only Son ১৯৩৬ নাট্য ৮৭ ৭.৭ ১,২২৫
২০ Daigaku yoitoko ১৯৩৬ কমেডি ৭.৭ ২৫
২১ Kagamijishi ১৯৩৬ প্রামাণ্যচিত্র, স্বল্পদৈর্ঘ্য ২৪ ৬.৪ ১১৩
২২ An Inn in Tokyo ১৯৩৫ নাট্য ৭.৭ ৪৫৪
২৩ Hakoiri musume ১৯৩৫ ৬.৯ ১৯
২৪ A Story of Floating Weeds ১৯৩৪ নাট্য ৮৬ ৭.৮ ১,৫২৯
২৫ A Mother Should Be Loved ১৯৩৪ নাট্য ৬.৭ ১৫০
২৬ Dekigokoro ১৯৩৩ নাট্য ১০০ ৭.৪ ৫৬২
২৭ Dragnet Girl ১৯৩৩ অপরাধ, নাট্য, রোমান্টিক ৭.২ ২২১
২৮ Woman of Tokyo ১৯৩৩ নাট্য ৭.২ ৩২৩
২৯ Until the Day We Meet Again ১৯৩২ ৬.৪
৩০ Where Now Are the Dreams of Youth ১৯৩২ ৭.২ ১৯২
৩১ I Was Born, But... ১৯৩২ কমেডি, নাট্য ১০০ ৭.৯ ২,২৯৫ ১০০
৩২ Tokyo Chorus ১৯৩১ কমেডি, নাট্য ৭.৫ ৫৫৩
৩৩ The Sorrow of the Beautiful Woman ১৯৩১ নাট্য ১০৮ ৪.৬ ১৩
৩৪ The Lady and the Beard ১৯৩১ কমেডি, রোমান্টিক ৬.৮ ১৫২
৩৫ Ojosan ১৯৩০ কমেডি ৩.৭ ১৮
৩৬ The Luck Which Touched the Leg ১৯৩০ ৪.৮ ১৩
৩৭ The Revengeful Spirit of Eros ১৯৩০ স্বল্পদৈর্ঘ্য, নাট্য ৬.০ ১১
৩৮ That Night's Wife ১৯৩০ নাট্য ৬.৯ ১৭২
৩৯ I Flunked, But... ১৯৩০ ৬৫ ৬.৬ ১৪৬
৪০ Walk Cheerfully ১৯৩০ রোমান্টিক, অপরাধ, নাট্য ৯৫ ৬.৫ ১৩৯
৪১ Kekkongaku nyûmon ১৯৩০ ৬.৩
৪২ A Straightforward Boy ১৯২৯ কমেডি, স্বল্পদৈর্ঘ্য ১৪ ৬.৭ ১৯৩
৪৩ The Life of an Office Worker ১৯২৯ নাট্য ৬.৪ ১২
৪৪ Daigaku wa detakeredo ১৯২৯ কমেডি ১২ ৬.৭ ১৫২
৪৫ Fighting Friends ১৯২৯ স্বল্পদৈর্ঘ্য, কমেডি ৬.৪ ১২৩
৪৬ Days of Youth ১৯২৯ কমেডি ৬.৮ ২৩২
৪৭ Treasure Mountain ১৯২৯ ৪.১ ১৩
৪৮ Hikkoshi fufu ১৯২৮ ৬০ ৫.৩
৪৯ Pumpkin ১৯২৮ ৬০ ৬.২ ১১
৫০ Wakodo no yume ১৯২৮ ৫.৫ ১৩
৫১ Blade of Penitence ১৯২৭ নাট্য ৭.১ ১৫
Share this article: