সাম্প্রতিক পরিবর্তন অজানা যেকোনো পাতা
Computers
Gaming
History 
Movies
Politics
Television
see all...
আরও...

স্পোরলোস

চলচ্চিত্র থেকে

(Spoorloos থেকে পুনর্নির্দেশিত)
স্পোরলোস
ঘরানা মনস্তাত্ত্বিক থ্রিলার
পরিচালনা জর্জ স্লাওজার
প্রযোজনা Anne Lordon, George Sluizer
কাহিনী টিম ক্রাবি
চিত্রনাট্য জর্জ স্লাওজার, টিম ক্রাবি
অভিনয় Bernard-Pierre Donnadieu, Johanna ter Steege, Gene Bervoets
সঙ্গীত হেনি ফ্রিন্টে
চিত্রগ্রহণ টনি কুন
সম্পাদনা জর্জ স্লাওজার, লিন ফ্রিডমান
বণ্টন Argos Films
মুক্তি ২৭ অক্টোবর, ১৯৮৮
দৈর্ঘ্য ১০৭ মিনিট
দেশ নেদারল্যান্ড, ফ্রান্স
ভাষা ওলন্দাজ, ফরাসি
বাজেট $ ১৬৫,০০০
রেটিংসমগ্র
IMDb ৭.৮/১০ ({{{imdb_votes}}})
RoTo ১০০% (৩৪)
Ebert ৩.৫/৪.০
আমার Spoorloos/১০

ফ্রয়েডের সাইকোএনালাইসিসে মানব মনের তিনটি স্তর আছে- ইগো, সুপারইগো এবং ইড। ইগো হচ্ছে চেতন মন যা আমাদেরকে একজন সামাজিক মানুষে পরিণত করে। ইড এবং সুপারইগো দুটিই অবচেতন বা অচেতন জগতের ব্যাপার। সুপারইগো হচ্ছে মনের ড্রাইভিং ফোর্স, সে আমাদেরকে চরমপন্থী সব নৈতিক বা অনৈতিক সিদ্ধান্তের দিকে ধাবিত করে। আর ইড হচ্ছে ইতর সব অভিলাসের চালিকাশক্তি, ক্ষণস্থায়ী কিন্তু নগদ সুখের খোঁজ করাই তার কাজ। এর সাথে কিন্তু ধর্মচিন্তারও মিল করা যায়। সুপারইগোকে বলা যায় ঈশ্বর, তবে মনে রাখতে হবে ঈশ্বর মানে ভাল নয়, ঈশ্বর মানে এমন একজন যে মনে করে, আমি যা বলি তাই মানুষকে শুনতে হবে। ইগো হচ্ছে মানুষ আর ইড হচ্ছে শয়তান। বলা যায় না, হয়ত ফ্রয়েড ভেবেছিলেন, মানুষ যেহেতু ধর্ম সৃষ্টি করেছে সেহেতু তার মানসিক কাঠামো ও ধর্মীয় কাঠামোর মধ্যে একটা মিল থাকা আবশ্যিক।

যাহোক আমার উদ্দেশ্য মনোবিশ্লেষণ নয় বরং সিনেমা বিশ্লেষণ। আর আজকের সিনেমা "স্পোরলস" (উচ্চারণ: স্পোর-লস), ইংরেজি নাম "দ্য ভ্যানিশিং", মুক্তির সন ১৯৮৮, নেদারল্যান্ড ও ফ্রান্সের যৌথ প্রযোজনা, পরিচালক জর্জ স্ল্যাজার (ডাচ)। সব সাইকো সিনেমাকেই মনোবিশ্লেষণের দৃষ্টিতে সবচেয়ে সুন্দর করে দেখা যায়। সাইকো সিনেমা বলতে বুঝাচ্ছি: যাতে প্রধান চরিত্রের মধ্যে মানসিক ভারসাম্য থাকে না। একটি লিভারের মাঝখানে যে দণ্ডটি দিয়ে ভারসাম্য রক্ষা করা হয় সেটি ইগো, দুই পাশের ভর দুটি হচ্ছে যথাক্রমে সুপারইগো এবং ইড। ভারসাম্যের অর্থ হচ্ছে ইগোকে লিভারের এমন জায়গায় স্থাপন করা যাতে তা সম্পূর্ণ অনুভূমিক থাকে, কোন প্রান্ত নিচে নেমে বা উপরে উঠে না যায়।

আমার মনে হয় না কারও মধ্যে সব সময় এই তিনটির পূর্ণ ভারসাম্য থাকে। ভারসাম্য নিয়ে প্রথম খেলেছিলেন সাইকো জনরা বা সার্বিকভাবে মনস্তাত্ত্বিক থ্রিলারের জনক আলফ্রেড হিচকক, তার সাইকো (১৯৬০) সিনেমায়। স্লোভেনীয় দার্শনিক ও মনোবিশ্লেষক স্লাভোই জিজেক তার "দ্য পারভার্টস গাইড টু সিনেমা" (২০০৬) প্রামাণ্য চিত্রে সাইকোর এই ভারসাম্যহীনতা নিয়ে ডিটেল বলেছেন, এই রিভিউয়ে আমি সেদিকে যাব না। আমার উদ্দেশ্য সাইকোএনালাইসিসের মাধ্যমে স্পোরলসের রিভিউ শুরু করা। মনোবিজ্ঞানে এর গ্রহণযোগ্যতা বর্তমানে কতটুকু তা জানি না কিন্তু প্রায় সব মনস্তাত্ত্বিক থ্রিলার বা হরর সিনেমাতেই এর ব্যবহার আছে। স্পোরলসের শুরুর কাহিনী দিয়েই শুরু করি...

এক ডাচ দম্পতি (সাসকিয়া ও রেক্স) নিজেদের গাড়িতে করে ফ্রান্সের একটি পল্লী অঞ্চলে যাচ্ছে সাইক্লিং হলিডে উদ্‌যাপন কররতে। প্রাইভেট কারের উপরে বাঁধা রয়েছে দুটি সাইকেল। একটি টানেলের মধ্য দিয়ে যাওয়ার সময় সাসকিয়া (রেমব্রন্টের বিখ্যাত স্ত্রীর নামে যার নাম) তার স্বপ্নের কথা বলে: একটি সোনার ডিমের ভেতরে বন্দী হয়ে মহাশূন্যে ভেসে যাচ্ছে সে, হঠাৎ আরেকটি সোনার ডিম দেখে এবং বুঝতে পারে দুই ডিমে ধাক্কা লাগলে সব চূর্ণ-বিচূর্ণ হয়ে যাবে। খুব উচ্ছল থাকলেও তাদের কথোপকথনে এবং মুখভঙ্গীতে কোথায় যেন একটি উৎকণ্ঠামিশ্রিত বিষন্নতা ধরা পড়ে। এই বিশেষ ধরণের বিষন্নতা ছেয়ে থাকে পুরো সিনেমাকেই। সমাজবিরোধী শক্তি তথা সোশিপ্যাথ এবং সাইকোপ্যাথদের উপস্থিতি সমাজবদ্ধ মানুষের মনে যে বিষন্নতা জাগিয়ে রাখে এ যেন তারই প্রতিধ্বনি।

যাত্রাপথেই হারিয়ে যায় সাসকিয়া, একদম কোন চিহ্ন না রেখে, যেন পৃথিবীর বুক থেকে পাঁজাকোলা করে কেউ উঠিয়ে নিয়েছে তাকে। মানুষের সমাজে এহেন অতিপ্রাকৃত ঘটনাও ঘটতে পারে! নিশ্চই কোন সমাজবিরোধী শক্তির হাত রয়েছে এতে। প্রায় সাথে সাথেই আমাদের পরিচয় করিয়ে দেয়া হয় একজন রসায়নের অধ্যাপকের সাথে যার একটি সুন্দর পরিবার রয়েছে, স্ত্রী ও দুটি কিশোরী মেয়ে। ইংরেজি সাবটাইটেল পড়তে পারেন এমন যে কেউ সিনেমার প্রায় শুরু থেকে বুঝতে পারবেন সাসকিয়ার উধাও হওয়ার সাথে অধ্যাপকের পরীক্ষণ যজ্ঞের সম্পর্ক আছে। তিনি ক্লোরোফর্ম জাতীয় একটি কেমিকেলের কার্যকারিতা নিয়ে পরীক্ষা করে যাচ্ছেন নিরন্তর, তার সদ্য কেনা পোড়োবাড়িতে।

অধ্যাপক একটি বিশেষ কারণে সেই ছোটকাল থেকেই সোশিওপ্যাথ হিসেবে সুপরিচিত। ১৬ বছর বয়সে তিনি একবার বাড়ির দোতলা থেকে পাকা রাস্তায় লাফ দিয়েছিলেন, হাত পায়ে আঘাত লাগার পাশাপাশি তার মনোজগতেও এতে কিছু বিশৃঙ্খলা দেখা দেয়। হয়ত ইগো-সুপারইগো-ইড এর ভারসাম্য নষ্ট হয়ে যায়। তবে তারও আগে থেকে যে তার মধ্যে সমাজবিরোধী সত্ত্বার উপস্থিতি ছিল লাফ দেয়ার সিদ্ধান্ত থেকেই তা বোঝা যায়। লাফ দিয়েছিলেন এই ভেবে, "Is it predestined that I won't jump? How can it be predestined that I won't? So, to go against what is predestined, one must jump. I jumped."

Share this article: