সাম্প্রতিক পরিবর্তন অজানা যেকোনো পাতা
Computers
Gaming
History 
Movies
Politics
Television
see all...
আরও...

বডি হিট

চলচ্চিত্র থেকে

(Body Heat থেকে পুনর্নির্দেশিত)

বডি হিট (১৯৮১) শ্বাসরুদ্ধকর থ্রিলার, ইরটিক রোমান্স এবং নান্দনিক নিও-নোয়া (neo-noir) সব হিসেবেই সফল। সিনেমাটির প্রায় শেষ মুহূর্ত পর্যন্ত থেকে যাওয়া কিছু অজানা তথ্য যেমন রোমাঞ্চ তৈরি করে, তেমনি ফ্লোরিডার তীব্র উষ্ণ প্রবাহে সৃষ্ট ঘামের উষ্ণতা ও লবণাক্ততা কিছু অকৃত্রিম কামরাসায়নিক বিক্রিয়ার রসদ জোগায়। গ্রীষ্মকালীন রাতের জাঁকালো ধোঁয়াশা বেশ স্টাইলিস্ট নোয়া (noir) পরিবেশ তৈরিতেও পিছপা হয় না। সব মিলিয়ে পঞ্চাশ ও ষাটের দশকে হলিউডে যে নোয়া বিপ্লবের জন্ম হয়েছিল এই সিনেমার মাধ্যমে কিছুক্ষণের জন্য হলেও তার প্রায় সার্থক পুনর্জন্ম ঘটেছে, উপরন্তু অন্তত সেক্সের দিক দিয়ে তা ষাটের দশকের চেয়ে অনেক পরিণত।

সিনেমাটির বিষয়বস্তু অন্য অনেক নোয়া এবং স্ক্রুবল সিনেমার মতোই বেশ সরল- খানিকটা বোকা গোছের সুদর্শন ও রমণবিলাসী এক ছেলে ভয়ানক উচ্চাভিলাসী বিবাহিত কোন মেয়ের প্রেমে পড়ে গেছে; মেয়েটি ধরা দিয়েও দেয় না, একটু রহস্য বজায় রাখে, ছেলেটি সে রহস্যের সাথে মারপিট করে। বডি হিটের শুরুতে আমরা এক সুদর্শন প্লেবয় আইনজীবীর (নেড ড়্যাসিন) সাথে পরিচিত হই, যার আইন ব্যবসা বিশেষ ভাল যাচ্ছে না এবং কখনো ভাল গেছে বলে মনেও হয় না। যে রাতে তার সাথে শ্বেতবসনা কমণীয় ম্যাটির পরিচয় হয় সে রাত শুরুতে অন্য আট দশটা রাতের মতোই ছিল। কিন্তু নেডের সেই সাধারণ রাতগুলোর চাহিদা যারা পূরণ করতো ম্যাটি তাদের মতো নয়, না বলে না কয়ে হঠাৎই সে অদৃশ্য হয়ে যায় এবং ক্যাসডান আমাদেরকে বোঝাতে একটুও দেরি করেন না যে নেড তাকে খুঁজে বের করবেই।

ম্যাটির প্রাসাদোপম বাড়ির আকার-আয়তন তার স্বামীর (এডমান্ড ওয়াকার) অর্থের পরিচয় বহন করে, কিন্তু দোতলার খোলা বারান্দায় সুন্দর করে সাজানো চাইমগুলো অন্য কিছুর পরিচায়ক, হয়তো তারা ম্যাটির মনের অন্ধকার কোণে জমে থাকা অভিলাসগুলোকে শক্তি জোগায়। এডমান্ডের অর্থের উৎস অবশ্যই সাধু নয়, তার মত কয়েকটা লোক পৃথিবীতে কম থাকলে নেডের বন্ধুর মত (পিটার লোয়েনস্টিন, যার প্রথম নামের চেয়ে শেষ নাম সবার বেশি পছন্দ এবং যে আনমনে নাচতে পারে) অনেকেই অন্তত অখুশী হবে না। এমন অপ্রিয় চরিত্রের প্রতি দর্শকদের সহানুভূতির অভাবকে সব ক্রাইম থ্রিলারেই কাজে লাগানো হয়, ক্যাসডানও তার ব্যতিক্রম কিছু করেননি। নেড-ম্যাটির প্রণয়স্রোত যে অচিরেই এডমান্ডকে খুন করার মত সিদ্ধান্তের অনুকূলে প্রবাহিত হবে তা বুঝতে খুব বেশি দেরি হয় না। ধনী স্বামীর মৃত্যু ঘটলে যে স্ত্রী এবং স্ত্রীর প্রেমিকের যথেষ্ট লাভবান হওয়ার সুযোগ থাকে সে কথা সবারই জানা। কিন্তু কার লাভ, কার লোকসান এবং কার স্বার্থ কোথায় কাজ করছে তার হিসাব মেলাতে এখানে বেশ কষ্ট হয়। এই প্রশ্নগুলোকে কেন্দ্র করেই সিনেমার থ্রিল জমে ওঠে।

কিন্তু থ্রিল এই সিনেমার গৌণ বিষয়, বা একে সিনেমাটির কঙ্কাল বলা যায়। সেক্ষেত্রে রক্তমাংস বলতে হবে সিনেমার সংবেদনশীল যৌনতাকে, আর ত্বক বলা যায় নোয়া স্টাইলকে। তাই বলাই বাহুল্য, ফ্লোরিডার উষ্ণপ্রবাহ না থাকলে এই সিনেমা তার রক্তমাংস হাড়াতো। গরমে মানুষের অস্থিরতা বাড়ে, সে কাজে মন বসাতে পারে না, প্রাকৃতিক বাতাস না থাকলে অন্তত কৃত্রিম বাতাসের জন্য ছটফট করে- এগুলো প্রকাশ্য সত্য। কিন্তু একইসাথে গরমে আমরা ঘামি; ঘাম মানুষভর্তি বাসের ভেতর অসহ্য হলেও, প্রণয়-প্রণয়ীর বিছানায় খুবই কামনার। নেডের ঘাম ম্যাটির খুব পছন্দের, যদিও ম্যাটির ঘাম বিষয়ে নেডের মতামত ঠিক জানা যায়নি। তবে দুজনার ঘামে ভেজা দেহের মিথস্ক্রিয়া দেখেই তাদের যৌন রসায়নটা আন্দাজ করা যায়, এবং সেটা খুবই প্রগাঢ়। নেডের ঘামের লবণাক্ত স্বাদও ম্যাটির খুব পছন্দের। এদিক থেকে বডি হিট মানুষের বিবর্তনীয় ইতিহাসের স্বাক্ষ্য বহন করে। ডাক্তাররা সাধারণত নারীদের যৌন কামনা বৃদ্ধির জন্য টেস্টোস্টেরোন দেন, কিন্তু পুরুষের ঘামেই প্রচুর টেস্টোস্টেরোন থাকে যা সেক্সের সময় কোন নারীকে আরও উত্তেজিত ও আসক্ত করে তুলতে পারে। নারী-পুরুষের এই প্রাগৈতিহাসিক আফ্রিকান মিথস্ক্রিয়া বড় পর্দায় বডি হিটের চেয়ে ভাল করে কখনো দেখা যায়নি। এক্ষেত্রে অবশ্যই উইলিয়াম হার্ট ও ক্যাথলিন টার্নারকে বিশেষ কৃতিত্ব দিতে হবে।

তবে বডি হিটে সেক্সের কেবল লবণাক্ত স্বাদ নয় বরং কমেডিক দিকটারও স্বদ্ব্যবহার করা হয়েছে। সেক্স একদিক থেকে খুব অদ্ভুত, কারণ একলা ঘরে তা খুব অন্তরঙ্গ ও সিরিয়াস হলেও অন্য কারও উপস্থিতিতে বেশ হাস্যকর, এবং বিশেষ করে সেক্স বিষয়ক আলোচনাকে আমরা কমিক না ভেবে থাকতে পারি না। সিনেমাটির প্রথম দিকেই আমাদের মনে হয় ম্যাটি-নেডের প্রেমের বিষয়টা তার স্বামী জেনে যাবে। আমাদের এই ভাবনাকে উস্কে দিতে ক্যাসডান দুই দুইবার জুটিটিকে খুব হাস্যকরভাবে ধরা খাইয়ে দেন। দুবারই যৌনতার মাধ্যমে; দুবারই নেডের ইডিয়ট সত্তাটিকে উন্মোচিত করে দেয়ার মাধ্যমে। একবার, ম্যাটির বাড়িতে একজনকে পেছন থেকে ম্যাটির মত মনে হওয়ায় নেড বলে, "Lady, you want to fuck?" পড়ে বুঝতে পারে সে আসলে ম্যাটির পুরনো বন্ধু ম্যারি অ্যান (হাই স্কুলে থাকতে যার স্বপ্ন ছিল কেবল পাশ করা)। আরেকবার, নেডের ঘামের স্বাদ নেয়ার পর ম্যাটি যেই তার প্যান্ট খুলে শিশ্নটি মুখে নেয় অমনি তার ননদের মেয়ে চলে আসে। মেয়েটির সাথে চোখাচোখি হয় নেডের, সে তখন যতোটা হতভম্ব ততোটাই অপ্রস্তুত। এ নিয়ে পরবর্তীতে নেড ও লোয়েনস্টিন বেশ কিছুক্ষণ হাসিঠাট্টা করেছিল।

তবে বডি হিটের সবচেয়ে সূক্ষ্ণ, শৈল্পিক অংশটি হচ্ছে স্টাইল। নোয়া স্টাইলটি তৈরিতে ষাটের দশকের মতোই আলো-আঁধার, ছায়া এবং ক্যাপের অনেক অবদান, কিন্তু এখানে আগুন, ধোঁয়া এবং কুয়াশার ভূমিকা বেশ অভিনব। এডমান্ডকে খুন করা হয় এক কুয়াশাচ্ছন্ন রাতে, কুয়াশার তখন অনেক ভূমিকা। কুয়াশা নেড ও ম্যাটি দুজনকেই পুলিশের হাত থেকে বাঁচায়, ম্যাটিকে বাড়ি পৌঁছে দিয়ে ফেরার পথে নেড কুয়াশা, রাস্তার অন্য গাড়ি নাকি নিজের মন কোনটাকে মোকাবেলা করবে ভেবে দিশেহারা হয়, আর সেই দোতলার বারান্দায় দাঁড়িয়ে থাকা ম্যাটি ও তার চাইমগুলোকে কুয়াশা একটু আড়াল বা ধূসর করার চেষ্টা করে।

চরিত্রসমূহ

  • William Hurt as Ned Racine
  • Kathleen Turner as Matty Walker
  • Richard Crenna as Edmund Walker
  • Ted Danson as Peter Lowenstein
  • J.A. Preston as Oscar Grace
  • Mickey Rourke as Teddy Lewis
  • Kim Zimmer as Mary Ann Simpson

গ্যালারি

Body heat 1.png Body heat 2.png Body heat 3.png
Body heat 4.png Body heat 5.png Body heat 6.png
Body heat 7.png Body heat 8.png Body heat 9.png
Share this article: