সাম্প্রতিক পরিবর্তন অজানা যেকোনো পাতা
Computers
Gaming
History 
Movies
Politics
Television
see all...
আরও...

স্লিপার

চলচ্চিত্র থেকে

Sleeper
ঘরানা কল্পবিজ্ঞান কমেডি
পরিচালনা উডি অ্যালেন
প্রযোজনা Jack Grossberg
কাহিনী এইচ জি ওয়েলস (When The Sleeper Wakes)
চিত্রনাট্য Woody Allen, Marshall Brickman
অভিনয় Woody Allen, Diane Keaton, John Beck, Marya Small, Susan Miller
সঙ্গীত Woody Allen
চিত্রগ্রহণ David M. Walsh
সম্পাদনা O. Nicholas Brown, Ron Kalish, Ralph Rosenblum
বণ্টন United Artists
মুক্তি ১৭ ডিসেম্বর, ১৯৭৩
দৈর্ঘ্য ৮৮ মিনিট
দেশ যুক্তরাষ্ট্র
ভাষা ইংরেজি, ইদিশ হিব্রু
বাজেট $ ২০ লক্ষ
আয় $ ১ কোটি ৮০ লক্ষ
রেটিংসমগ্র
IMDb ৭.২/১০ ({{{imdb_votes}}})
RoTo ১০০% (২৯)
Ebert ৩.৪/৪.০
আমার Sleeper/১০
লুনা: Oh, I see. You don't believe in science, and you also don't believe that political systems work, and you don't believe in God, huh?
মাইলস: Right.
লুনা: So then, what do you believe in?
মাইলস: Sex and death - two things that come once in a lifetime... but at least after death, you're not nauseous.

সিনেমার শেষের এই কথোপকথনে সিনেমাটির এসেন্স অনেকটাই ফুটে ওঠে। উডি অ্যালেন যা কিছু তৈরির চেষ্টাই করুন না কেন, শেষ পর্যন্ত তিনি একজন কমেডিয়ান। প্রায় অর্ধ শতকের চলচ্চিত্র জীবন জরিপ করলে দেখা যাবে তার অপেক্ষাকৃত কম ভাল সিনেমার সবগুলোতেই তার হিসেবে গাম্ভীর্যের একটু আতিশয্য আছে। এই বিশাল কমেডি ক্যারিয়ারে চলচ্চিত্রকার হিসেবে তার সেরা কাজ স্লিপার না হলেও অন্তত অভিনেতা হিসেবে এটা নিঃসন্দেহে তার সেরা কম্ম। স্লিপার যেন ১০-২০-৩০ এর দশকের স্ল্যাপস্টিক কমেডি যুগের পর দীর্ঘ বিরতি শেষে এক পশলা বৃষ্টির মতন। বাস্টার কিটন বা চার্লি চ্যাপলিনের যতটুকু কাছে পৌঁছানো সম্ভব স্লিপারের মাধ্যমে উডি অ্যালেন ততোটাই পৌঁছেছেন।

স্লিপারে কল্পবিজ্ঞান এবং তার মাধ্যমে আধুনিক বিশ্বের গোটা ভিত্তিটাকে ব্যঙ্গ করা হয়েছে, যদিও সিনেমাটি এইচ জি ওয়েলসের একটি কল্পবিজ্ঞান গল্প থেকেই অনুপ্রাণিত। এতে ২০০১: আ স্পেস অডিসির ব্যঙ্গ রয়েছে, কিন্তু সেটা এমনভাবে যে কোন ২০০১-ভক্তেরও তা দেখে ক্ষুব্ধ হবার জো নেই।

মাইলস মনরোর ২০০ বছর ঘুমন্ত থাকার পর জেগে ওঠার মত বিস্ময়কর ঘটনার মধ্যে কমেডি উপাদান পাওয়া যায় ছোট ছোট কিছু বিষয়ে মাত্রাতিরিক্ত গুরুত্বারোপের মাঝে। যেমন, মাইলস গ্রিনিচ ভিলেজে একটা হ্যাপি ক্যারট নামে একটা হেল্থ ফুড স্টোর চালাতো, একদিন সেন্ট ভিনসেন্ট হাসপাতালে খুব ছোট্ট একটা অপারেশন করতে গিয়ে তাকে বিপাকে পড়তে হয়। ডাক্তার বলেছিল ৩-৫ দিনের মধ্যে তার ঘুম ভাঙাবে, কিন্তু আসলে কেটে যায় ২০০ বছর। ২০০ বছর সে তার জীবনের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ এবং হয়তো একমাত্র অর্থপূর্ণ ব্যাপার, অর্থাৎ সেক্স করতে পারেনি সেটা সবাই নিশ্চিত, কিন্তু একটা সময় পর্যন্ত কেবল মাইলসই জানতো যে সময়টা আসলে ২০৪ বছর, তার বিয়েটা হিসাবের মধ্যে রাখলে।

২০০ বছর ঘুমিয়ে থাকার পর জেগে উঠে কি করা যায় সেটা নিয়ে অনেকের অনেক রকম চিন্তা থাকতে পারে, অধিকাংশ চিন্তাই খুব ভাবগাম্ভীর্যপূর্ণ হবে সন্দেহ নেই। কিন্তু একজন কমেডিয়ানের পরিকল্পনা যা হওয়া উচিত উডির পরিকল্পনা তার থেকে একেবারেই আলাদা নয়। ৫ দিনের নাম করে তাকে ২০০ বছর কোন মহাজাগতিক কারণ ছাড়াই তাকে ঘুম পাড়িয়ে রাখার কারণে সে কেবলই ক্রুদ্ধ এবং বিচলিত, আর কিছু নয়। জেগে ওঠে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রকে একটা পুলিশি একনায়কতন্ত্র হিসেবে দেখলেও সেখানে হিরো হওয়ার বা সাজার কোন চিন্তা তার মাথায় নেই। সে নিজের কাপুরুষত্ব বলিষ্ঠ কণ্ঠে প্রকাশ করতে গিয়ে বলতে দ্বিধা করে না- আমাকে এমনকি কোয়েকাররাও ধোলাই লাগায়।

২১৭৩ সালের আমেরিকা পুলিশি রাষ্ট্র। প্রশাসক "দ্য লিডার" নামের এক মহা একনায়ক। কিন্তু যথারীতি বিপ্লবীরও অভাব নেই, তারা আন্ডারগ্রাউন্ড আন্দোলন গড়ে তুলেছে। বিপ্লবীদের উডিকে দরকার, কারণ সেই একমাত্র জীবিত ব্যক্তি যার কোন রেকর্ড সরকারের কাছে নেই। কিভাবে উডিকে দিয়ে কি করবে সেটা নিয়ে অবশ্য সিনেমাতে বিপ্লবী বা উডি কাউকেই মাথা ঘামাতে দেখা যায় না। ডোমেস্টিক রোবট সেজে পালাতে গিয়ে উডির জায়গা হয় এক মাথা মোটা কবির (লুনা, ডায়ান কিটন) বাড়িতে, যে একসময় বিপ্লবীদের নেতাকে পছন্দ করে। ঘটনাক্রমে মাইলস আর লুনা জানতে পারে দ্য লিডার আর নেই, বিপ্লবীদের বোমার আঘাতে তার ঘর গেছে, কিন্তু অবশিষ্ট আছে শুধু নাকটা। বৈজ্ঞানিক ভেল্কির মাধ্যমে বাঁচিয়ে রাখা নাকটি থেকে আরেক মহাবৈজ্ঞানিক ভেল্কির মাধ্যমে দ্য লিডারকে পুরোপুরি ক্লোন করা হবে। স্বভাবতই সবাই মাইলসকে ক্লোনিঙের প্রধান ডাক্তার ভেবে ভুল করে। ডাক্তারকে সাহায্য করতেই সবুজ চোখা কম্পিউটারের আবির্ভাব যার কণ্ঠ হুবহু স্ট্যানলি কুবরিকের HAL কম্পিউটারের মত (একই অভিনেতা কণ্ঠ দিয়েছেন)।

মিশনের সব কৃতিত্ব বিপ্লবীদের দেয়ায় লুনার প্রতি ক্ষিপ্ত হয় কোয়েকারদের হাতে মার খাওয়া মাইলস। সে ব্যাখ্যা করে কিভাবে রাজনীতি, রাজনীতিবিদদের হাতের মুঠোয় থাকায় বিজ্ঞানীরা, সকল বিজ্ঞ নীতিবিদ বা জীবনের কোন নীতিই কখনও কোনকিছুর সমাধান করতে পারে না। আজকে দ্য লিডারের নাক নিয়ে পালানো দরকার তো কি হয়েছে, আর কয়দিন পর দেখা যাবে গরিবের বন্ধু বিপ্লবীদের মহানায়কের নাক নিয়ে ছুট দেয়ার দরকার হয়ে পড়বে। এটাই বাস্তবতা। একটা রাষ্ট্র, একটা আদর্শ আর তাদের সব নৃশংসতা দেখে না হেসে কোন উপায় নেই, সিরিয়াসলি নেয়া যায় কেবল সেক্স আর মৃত্যুকেই।

Share this article: