সাম্প্রতিক পরিবর্তন অজানা যেকোনো পাতা
Computers
Gaming
History 
Movies
Politics
Television
see all...
আরও...

ব্লেইম ইট অন রিও

চলচ্চিত্র থেকে

ব্লেইম ইট অন রিও
ঘরানা ইরটিক ড্রামা, সেক্স কমেডি
পরিচালনা স্ট্যানলি ডনেন
প্রযোজনা Stanley Donen, Larry Gelbart, Robert E. Relyea
চিত্রনাট্য Charlie Peters, Larry Gelbart
অভিনয় Michael Caine, Joseph Bologna, Michelle Johnson, Demi Moore, Valerie Harper
সঙ্গীত Kenneth Wannberg
চিত্রগ্রহণ Reynaldo Villalobos
সম্পাদনা George Hively, Richard Marden
বণ্টন 20th Century Fox (মূল), এমজিএম (বর্তমান)
মুক্তি ১৭ ফেব্রুয়ারি, ১৯৮৪
দৈর্ঘ্য ১০০ মিনিট
দেশ যুক্তরাষ্ট্র
ভাষা ইংরেজি
আয় $ ১৮,৫৬১,৯৯৮
রেটিংসমগ্র
IMDb ৫.৫/১০ ({{{imdb_votes}}})
RoTo ৯% (২২)
Ebert ১/৪.০
আমার Blame It on Rio/১০

স্ট্যানলি ডনেন এর করা শেষ সিনেমা। এখনও সিঙিং ইন দ্য রেইন দেখিনি কিন্তু কি মনে করে এটা দেখে ফেললাম। অবশ্য কেন দেখেছি সেটা অনুমান করা কষ্ট নয়। সচরাচর আমি ভাল সিনেমা দেখি, মানে রটেন টম্যাটোসে যে সিনেমাগুলোর রেটিং অন্তত ৬০% এর উপরে। অথচ এটার রেটিং মাত্র ৯%। ২২ জন সমালোচকের মধ্যে মাত্র ২ জন ভাল বলেছেন এবং যারা বলেছেন তারা মোটেই নির্ভরযোগ্য সমালোচক নন। ভাগ্যিস সিনেমাটা দেখার আগে রেটিং এর দিকে চোখ যায়নি।

আমি মূলত দেখতে চেয়েছিলাম প্রথাবিরুদ্ধ বিষয়বস্তু এবং অবাধ যৌনতার ব্যবহার দেখে। যাই বলি না কেন সেক্স কমেডি আমার প্রিয় জঁরাগুলোর একটা। সিনেমার কাহিনী দুই বন্ধু ও তাদের দুই কিশোরী মেয়েকে ঘিরে। মধ্য বয়সের শেষ দিকে পৌঁছে যাওয়া বন্ধু দুজন ব্রাজিলের বাণিজ্যিক কেন্দ্র সাউ পাউলোতে থাকে। ম্যাথিউ (মাইকেল কেইন) স্ত্রীর প্রতি খুব বিশ্বস্ত হলেও তাদের সম্পর্ক ভাল বলা যাবে না। আর ভিক্টরের স্ত্রী ডিভোর্সের প্রক্রিয়ার মাঝে আছে। ভিক্টর মেয়ে জেনিফারকে নিয়ে ম্যাথিউয়ের পরিবারের সবার (মেয়ে নিকোল ও স্ত্রী) সাথে রিও দি জানেইরুতে বেড়াতে যেতে চায়। যাওয়ার ঠিক আগ মুহূর্তে স্ত্রী জানায় সে রিও যাচ্ছে না। অগত্য রিও যেতে হয় দুই বন্ধু এবং তাদের মেয়ে জেনিফার ও নিকোলকে। এখানেই বন্ধুর ১৭ বছর বয়সী মেয়ে জেনিফারের সাথে গভীর যৌন সম্পর্কে জড়িয়ে পড়ে ম্যাথিউ।

সমালোচকদের মতে সিনেমার সবচেয়ে বড় দুর্বলতা- চিত্রনাট্য এবং একটি সিরিয়াস যৌন সম্পর্ককে উদ্ভট রকমের হালকা করে দেখানো। চিত্রনাট্যের দুর্বলতা অবশ্যই স্বীকার করতে হবে, এ কারণেই অর্ধেকের পর সিনেমাটা মরে যায়। মনে হয় অর্ধেক বানানোর পর হাল ছেড়ে দিয়েছিলেন ডনেন সাহেব। তবে দ্বিতীয় সমালোচনাটা মানতে পারি না। ৪৫ বছর বয়স্ক এক পুরুষের সবচেয়ে প্রিয় বন্ধুর ১৭ বছর বয়সী মেয়ের সাথে গভীর যৌন সম্পর্কে জড়িয়ে পড়াটা সামাজিক এবং নৈতিক দিক দিয়ে যতোই অগ্রহনযোগ্য হোক না কেন, মানবিক দিক দিয়ে ঠিক ততোটাই গ্রহণযোগ্য। এটা খুবই বাস্তব এবং মানবিক একটি ঘটনা। এবং এটা নিয়ে যেহেতু মানুষের খুব শুচিবায়ু আছে সেহেতু সেটা নিয়ে ঠাট্টা-তামাশা করাটাও খুব বুদ্ধিমানের কাজ। তবে অস্বীকার করব না, তামাশাটা আরও উচ্চ মানের হতে পারতো।

এ ধরণের সম্পর্ক নিয়ে সিরিয়াস সিনেমা (লোলিটা) যেমন বানানো সম্ভব তেমনি আবার রসাত্মক সিনেমাও বানানো সম্ভব। রজার ইবার্টের মত আমি এই সিরিয়াস বিষয়কে স্ল্যাপস্টিক কমেডির সাথে গুলিয়ে ফেলার সমালোচনা করব না। তবে স্বীকার করব, এত জটিল একটি সম্পর্ক নিয়ে হওয়া সিনেমা যত উৎকৃষ্ট হওয়া উচিত ছিল ততোটা হয়নি। তারপরও বিশ্ব-দর্শকের কাছে কিছুটা পৌঁছে দিতে পারার জন্য স্ট্যানলি ডনেনকে ধন্যবাদ না দিয়ে পারছি না।

তবে যথারীতি প্রথাবিরোধিতার দেশ ফ্রান্সে এ নিয়ে আগেই সিনেমা হয়েছে। আসলে ব্লেইম ইট অন রিও Un moment d'égarement বা ইন আ ওয়াইল্ড মোমেন্ট (১৯৭৭) নামক একটি ফরাসি সিনেমার মার্কিন পুনর্নির্মাণ। অবশ্যই ফরাসি সিনেমাটি আরও ভাল হওয়ার কথা।

সত্যি বলতে সিনেমার কমিক চরিত্র এবং সূচনাটা বেশ ভাল ছিল। এত মারাত্মক বিষয়বস্তুকে শেষ পর্যন্ত ধরে রাখতে না পারার জন্য ডননকে ক্ষমা করতে পেরেছি দুটি কারণে: প্রথমত, এটা তার শেষ সিনেমা আর দ্বিতীয়ত,

Michelle Johnson.png

মেয়েটির যৌন আকর্ষণের কাহিনী মোটেই অবাস্তব কিছু নয়। অনেক কিশোরী বয়স্ক লোকের প্রতি যৌনভাবে প্রচণ্ড আকৃষ্ট হয়ে পড়ে এবং অনেক ক্ষেত্রে মেয়েটিই প্রলুব্ধ করায় মুখ্য ভূমিকা রাখে। আকর্ষণের মোহ শেষ হলে আবার অনেক মেয়েই অতীত ভুলে যেতে চায় বা সোজা বিষয়টি এড়িয়ে যায়। সিনেমাটা মুক্তি পাওয়ার পর সাক্ষাৎকারে ডনেন সাহেব ঠিক এই কথাটাই বলতে চেয়েছিলেন।[১]


Muhammad2017, ২২শে মে, ২০১২

Share this article: