সাম্প্রতিক পরিবর্তন অজানা যেকোনো পাতা
Computers
Gaming
History 
Movies
Politics
Television
see all...
আরও...

কিলারস কিস

চলচ্চিত্র থেকে

কিলারস কিস কুবরিকের দ্বিতীয় পূর্ণদৈর্ঘ্য সিনেমা। মুক্তি পায় ১৯৫৫ সালে। কুবরিক চেয়েছিলেন লাইভ সাউন্ড মুভি বানাতে, অর্থাৎ শ্যুটিং এর লোকেশনেই লাইভ শব্দ ধারণ। কিন্তু সেটা সম্ভব হয়নি। অবশেষে শব্দ পরেই যোগ করেন। প্রথম সিনেমার মতো এটি নিয়েও কুবরিক ভয়ানক অসন্তুষ্ট ছিলেন। নিজের কাজ হওয়া সত্ত্বেও ইউনাইটেড আর্টিস্টসকে অনুরোধ করেছিলেন সিনেমাটি সার্কুলেশন থেকে উঠিয়ে নিতে। তারপরও সিনেমাটি চলছে এবং সত্যি বলতে সমালোচকদের কাছ থেকে বেশ ভাল রিভিউ পেয়েছে।

জ্যানেট মেসলিনের রিভিউ

১৯৫৩ সালে স্ট্যানলি কুবরিকের পরিচালনা, চিত্রগ্রহণ এবং সম্পাদনায় প্রকাশিত হয় ফিয়ার এন্ড ডিজায়ার। কুবরিকের কাছে এই প্রথম সিনেমাটি কেবলই কঙ্কাল। সম্প্রতি তিনি ওয়ার্নার ব্রাদার্সের কাছে অনুরোধ করেছেন একটি চিঠির মাধ্যমে তার এই প্রথম প্রচেষ্টাকে "bumbling, amateur film exercise" এবং "a completely inept oddity, boring and pretentious" হিসেবে আখ্যা দিতে। তারপরও আজ ফিল্ম ফোরামে তার প্রথম এবং দ্বিতীয় সিনেমা সপ্তাহ ব্যাপী প্রদর্শনীর জন্য মুক্তি পেতে যাচ্ছে। তার দ্বিতীয় সিনেমার নাম "কিলারস কিস"।

এমন ক্ষেত্রে হাইন্ডসাইট খুব উপযোগী হয়ে ওঠে। মাত্র ২৫ বছর বয়সে ৪০,০০০ ডলারের বাজেটে নির্মীত কুবরিকের প্রথম সিনেমা "একটি সহিংস পৃথিবীতে হারিয়ে যাওয়া মানুষের গল্প" হিসেবে আখ্যায়িত হয়েছিল। এই সিনেমার নির্মাতা ভবিষ্যতে আমাদের কি দেবেন তা তখন বুঝতে পারলে বেশ ভালই লাগতো। উল্লেখ্য ফিয়ার এন্ড ডিজায়ার সম্পর্কে কুবরিকের নিজস্ব মূল্যায়ন অনেক দিক দিয়ে সত্য হলেও তিনি একে যতোটা খারাপ বলেছেন এটি আসলে অতো খারাপ নয়। এটি অবশ্যই প্রিটেনশাস, মাঝেমাঝে বোরিং, তারপরও ৬৮ মিনিট দীর্ঘ এই সিনেমা অনেক দিক দিয়ে প্রশংসনীয় চেষ্টার প্রতিফলন। ১৯৫৩ সালে যে গুটিকয়েক মানুষ এটি দেখেছিল তাদের মধ্যে একজন সমালোচক জেমস এজি। এটি যে বেশ প্রমিজিং তা বুঝতে পেরেছিল বলেই বোধহয় এজি এর ভূয়সী প্রশংসা করেছিল।

ফিয়ার এন্ড ডিজায়ারের ৪ জন সৈনিকের একজন শুকনো এবং বাচ্চার মতো চেহারাবিশিষ্ট পল মাজুরস্কি যে কিনা অস্তিত্ববাদী হাই স্কুলের কঠিন প্রশিক্ষণ পার করেও বেঁচে ছিল। শত্রু সীমানার পেছনে আটকে পড়া এই সৈনিকেরা নিজেদের ভাগ্য নিয়ে ভাবতে থাকে। কোন যুদ্ধ তা বলা হয়নি, স্যান গ্যাব্রিয়েল পর্বতে যুদ্ধের শুটিং করায় কুবরিককে এখানে কোন টাকা খরচ করতে হয়নি। ছবিটির চিত্রনাট্য লিখেছে কুবরিকের ব্রংক্স হাই স্কুলের বন্ধু হাওয়ার্ড স্যাকলার (যে পরে "দ্য গ্রেট হোয়াইট হোপ" এর জন্য পুলিৎজার পুরস্কার পেয়েছিল) যাকে ২৫ বছরের ১ দিন বেশি বয়সী কোন পরিচালকও নিয়োগ দিতো না। এজন্যই বোধহয় কুবরিক সিনেমাটি ত্যাগ করতে চায়। কিন্তু এই সিনেমার এডিটিং অসাধারণ, কম্পোজিশনের ধারণা বেশ স্ট্রাইকিং, নতুন পরিচালকের লো বাজেট সিনেমা হিসেবে এর সিনেমাটোগ্রাফি অনন্যসাধারণ রকমের স্মার্ট। কুবরিক ফ্যানদের জন্য এই বিরল সিনেমাটি দেখা আবশ্যক।

"কিলারস কিস" কুবরিককে আরও পরিচিত অঞ্চলে নিয়ে এসেছে। এটি এক বক্সার, একজন গ্যাংস্টার এবং একটি ড্যান্স গার্লকে নিয়ে করা ফিল্ম নয়ার। টাইমস স্কয়ার এমনকি সাবওয়েকে ঘটনাস্থল হিসেবে ব্যবহার এবং নয়ারের সাধারণ বৈশিষ্ট্য অনুসরণের পরও কুবরিক বেশ স্বচ্ছন্দে কাজ করেছেন। ড্যান্স গার্লের চরিত্রে যে মেয়েটি অভিনয় করেছৈ তার নাম ক্রিস কেইস, নিউ ইয়র্ক টাইমসের বেশ নিয়মিত লেখিকা। ফ্র্যাংক সিলভেরা অভিনয় করেছেন বক্সারের যার ক্যারিয়ারকে বলা হয়েছে "one long promise without fulfillment"। আর কুবরিকে ক্যারিয়ার? তার ক্যারিয়ারের ফুলফিলমেন্ট এসেছে পরে, কিন্তু এই সিনেমায় পাওয়া গেছে প্রমিজ।

-----
জ্যানেট মেসলিন
অনুবাদ - শিক্ষানবিস
Share this article: