সাম্প্রতিক পরিবর্তন অজানা যেকোনো পাতা
Computers
Gaming
History 
Movies
Politics
Television
see all...
আরও...

আ সিম্পল প্ল্যান

চলচ্চিত্র থেকে

আ সিম্পল প্ল্যান
ঘরানা মনস্তাত্ত্বিক থ্রিলার
পরিচালনা স্যাম রেইমি
প্রযোজনা James Jacks, Adam Schroeder, Mark Gordon, Gary Levinsohn
কাহিনী Scott Smith
চিত্রনাট্য Scott Smith
অভিনয় Bill Paxton, Billy Bob Thornton, Bridget Fonda
সঙ্গীত Danny Elfman
চিত্রগ্রহণ Alar Kivilo
সম্পাদনা Arthur Coburn
স্টুডিও Savoy Pictures, Mutual Film Company, Renaissance Pictures, The Mark Gordon Company
বণ্টন প্যারামাউন্ট
মুক্তি ১১ ডিসেম্বর, ১৯৯৮
দৈর্ঘ্য ১২১ মিনিট
দেশ যুক্তরাষ্ট্র
ভাষা ইংরেজি
বাজেট $ ১৭০ লক্ষ
আয় $ ১৬৩,১১,৭৬৩
রেটিংসমগ্র
IMDb ৭.৫/১০ ({{{imdb_votes}}})
RoTo ৯০% (৫২)
Ebert ৪/৪.০
আমার A Simple Plan/১০

রজার ইবার্ট অনেক সময়ই আমাকে বিপথগামী করেছে, কিন্তু তার এত বেশি রিভিউ ভাল লেগেছে যে এখনও তার রিভিউ পড়ে অনেক সিনেমা দেখতে উৎসাহী হই। এই সিনেমা দেখার সিদ্ধান্তটাও সেভাবে নেয়া। যদিও খুব একটা ভাল লাগেনি তথাপি ইবার্টের রিভিউ পড়ে সিনেমা দেখার সিদ্ধান্তটা খারাপ হয়েছে সেটা বলব না। সিনেমাটা দেখার সময় আমার বারবার মনে হচ্ছিল ফারগো-র মত ব্ল্যাক কমেডি নেই বলেই আমি এটা ঠিক হজম করতে পারছি না। অবশ্যই সিনেমাটা বানানোর সময় রেইমির মনে ব্ল্যাক কমেডি ছিল না, কিন্তু সেক্ষেত্রে বলতে হয় সিনেমার বিষয়বস্তু বড্ড একঘেয়ে এবং হরর ড্রামার সূত্রটা এখানে ঠিক মত কাজ করেনি।

সিনেমার কাহিনী দুর্ঘটনাবশত পেয়ে যাওয়া ৪০ লক্ষ ডলার নিয়ে। হ্যাংক, তার ভাই জ্যাকব এবং জ্যাকবের বন্ধু ল্যু তুষারাবৃত বনের ভেতর একটি বিধ্বস্ত প্লেনের ভেতর টাকাটা পায়। হ্যাংকের একটা ছোটখাট চাকরি আছে, বাড়ি-গাড়ি এবং বউ আছে, পরিবারও বেশ সুখী, স্ত্রী গর্ভবতী, বাচ্চা আসবে খুব শীঘ্রই- তার মুখ থেকে আমরা জানতে পারি তার বাবার মতে জীবনে সুখী হতে এর থেকে বেশি কিচ্ছু লাগে না। যথারীতি অন্য কিছুতে জড়িয়ে পড়ার ইচ্ছাটা হ্যাংকের চেতন মনে ছিল না। কিন্তু অবচেতনে যে সেই জড়িয়ে পড়তে সবচেয়ে বেশি পারঙ্গম সেটা বোঝাতে দেরি করেননি রেইমি ও স্কট স্মিথ। উল্লেখ্য, জ্যাকব ও ল্যু এর অবস্থা মোটেই সুবিধার নয়, দুজনের কারুরই চাকরি নেই, জ্যাকব অবিবাহিত আর ল্যু-এর স্ত্রী থাকলেই তাদের কথোপকথন রীতিমত অশ্রাব্য। প্লেনের ভেতর মৃত পাইলট ছিল, পাশে একটি ব্যাগের ভেতর টাকাগুলো। হ্যাংক প্রথমে টাকায় হাত দিতে সম্পূর্ণ অসম্মতি জানায়, ল্যু-এর সচেতন যুক্তিতে অবশ্য মন পরিবর্তন করতে বাধ্য হয় সে, জ্যাকব বন্ধুর কথায় দ্বিমত করার কোন কারণ দেখে না। হ্যাংকের শর্ত থাকে, টাকাগুলো তার বাড়িতে থাকবে, পুলিশ প্লেনটা খুঁজে পাওয়ার পর যদি টাকার ব্যাপারে কোন কথা না উঠে তাহলেই কেবল তারা টাকা ভাগাভাগির চিন্তা করবে। আর পুলিশ সূত্র টাকার কথা জানা গেলে সরাসরি সব টাকা পুড়িয়ে ফেলা হবে।

বাড়িতে টাকা, জঙ্গলে প্লেন, প্লেনের আশপাশে কাকেদের আনাগোনা, ভেতরে মৃত পাইলট, আর হ্যাংকের স্ত্রী স্যারাহ-র পেটে আলোর মুখ দেখতে উদ্যত বাচ্চা- এমন পটভূমিতেই সিনেমা শুরু হয়। কিন্তু ধীরে ধীরে সিনেমাটি রীতিমত সামাজিক হররে রূপ নেয়। পরিকল্পনা আর দুর্ঘটনার বেড়াজালে জড়িয়ে পড়ে চারটি চরিত্রই, তারা আরও যুক্ত করে কয়েকজন শহরবাসী এবং সরল বিশ্বাসী শেরিফকে। শহরটি পরিণত হয় এক ধরণের কিলিং ফিল্ডে।

সিনেমার পোস্টারে লেখা ছিল, আপাত ভাল ও সাধারণ মানুষেরাও হয়ে উঠতে পারে ইভ্‌ল। আর ইভ্‌ল নিয়ে স্যাম রেইমি যে খুব আগ্রহী সেটা তার চমৎকার হরর ইভিল ডেড দেখলেই বুঝতে পারার কথা। সিনেমার দুর্বলতা মূলত জঁরা নির্বাচন এবং চিত্রনাট্যে, উপন্যাস থেকে খুব বেশি তৈজসপত্র সিনেমাতে চলে এসেছে, কিন্তু নির্যাসটা যথাযথ আসেনি। অভিনয় নিয়ে কোন অভিযোগ নেই, সবাই চমৎকার অভিনয় করেছে। জঁরাটা কি হতে পারে সেটা নিয়ে অনেক ভেবেছি। অবশ্যই সিনেমাকে নির্দিষ্ট কোন জঁরার অন্তর্ভুক্ত হতে হবে এমন কোন কথা নেই এবং জঁরায় না মিললে সিনেমা ভাল লাগবে না এটা একেবারে অর্বাচীন মনোভঙ্গি। কিন্তু মনে হয়েছে এই সিনেমা কোন একটা জঁরায় জড়িয়ে পড়তে গিয়ে ব্যর্থ হয়েছে এবং এ ধরণের সিনেমার টোন কেমন হলে ভাল হয় সে বিষয়ে আমার মতের সাথে স্যাম রেইমির মতামত মিলছে না।

প্রথমত সিনেমার টোন অনেকটা ড্রামার মত, সেই ড্রামার মাঝে সাসপেন্স এবং ব্ল্যাক কমেডি তৈরির উপাদান ছিল কিন্তু রেইমি সেটার সদ্ব্যবহার করেননি, ড্রামার প্রতি বেশি গুরুত্ব দিয়ে ফেলেছেন। কোয়েন ভ্রাতৃদ্বয় তাদের ফারগো-তে এই ভুলটা করেননি বলেই তা আ সিম্পল প্ল্যান-কে অনেক গুণে ছাড়িয়ে গেছে। চমকের কোন কমতি নেই সিনেমাতে, সমাপ্তি প্রেডিক্টেবল হলেও অনেকগুলো টার্নিং পয়েন্ট আনপ্রেডিক্টেবল। কিন্তু আনপ্রেডিক্ট্যাবিলিটি থেকে যে মুগ্ধতার জন্ম হয় সেটা এই সিনেমা দেখে আমার হয়নি।

সিনেমার একটা সামগ্রিক থিম নির্মাণের চেষ্টা করা যাক। ইবার্ট তার রিভিউয়ের শেষ দিকে বেশ সুন্দরভাবে বলেছেন, জঙ্গলে শিয়াল মারে মুরগী আর মানুষ মারে মানুষ। সিনেমায় চমৎকার এক ধরণের সিম্বলিজম আছে। শুভ-র রঙ সাদা আর অশুভের রঙ কালো। বনের ভেতরটা পুরোই তুষারাবৃত। এই সাদার মধ্যে লাশ খেতে জড়ো হয়েছে অনেক কাক। প্লেনের ভেতর পাওয়া গেছে ৪০ লক্ষ টাকা যা শুভ এবং অশুভ দুটোরই চূড়ান্ত পরীক্ষা হিসেবে কাজ করতে পারে, পর্দায় সর্বক্ষণ বিরাজমান তুষার আর কাক সে কথাই আমাদের মনে করিয়ে দেয়। বলা যায় রেইমি বিধ্বস্ত প্লেনের সাইটটিকে ঘিরে এক ধরণের মঞ্চ তৈরি করেছেন যেখানে শুভ এবং অশুভ নিয়ে খেলা চলছে। উল্লেখ্য সিনেমার কার্যকরী সূচনা এবং সমাপ্তি এই মঞ্চেই ঘটেছে।


Muhammad2017, ২৬শে মে, ২০১২

Share this article: